Home / মিডিয়া নিউজ / যেভাবে দূর হল ঢাকাই সিনেমার অশ্লীলতা

যেভাবে দূর হল ঢাকাই সিনেমার অশ্লীলতা

২০০১ সালের পর থেকেই অশ্লীলতার স্বর্ণযুগ শুরু হলো। ২০০১ সাল থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায়

ছিল বিএনপি। বাংলা সিনেমায় সবচেয়ে বেশি অশ্লীলতা হয়েছে এই সময়টায়। সেসময় প্রতিবছর ৮০-র

বেশি চলচ্চিত্র নির্মিত হয়েছে। সারাদিন এফডিসিতে অখণ্ড নীরবতা, সন্ধ্যার পরেই আলো জ্বলে উঠত

সবখানে। শুরু হত তুমুল ব্যস্ততা। ফ্লোরে ফ্লোরে চলছে শুটিং। মদ-গাঁজা-হেরোইনের গন্ধে মাতাল এফডিসি। সুশীল সমাজ ও নাগরিকরা টেলিভিশনমুখী হয়ে গেলেন এবং বিদেশি চলচ্চিত্রে বেশি আকৃষ্ট হলেন। বাংলা ছবির দর্শক থাকল মূলত গ্রাম আর মফস্বলে। সাধারণত অশিক্ষিত তরুণরা এবং যুবকরা।

বিএনপি সরকারের সময়কাল তখন শেষের দিক। অবহেলিত অবস্থায় সেন্সর বোর্ড। অবহেলিত এ সংস্থাটি শান্তিনগরের একতলা অতিপুরনো একটি বাড়িতে কাজ চালিয়ে আসছিল। প্রজেকশন হলটিও ছিল প্রায় ভঙ্গুর। বর্ষাকালে স্যাঁতস্যাঁতে ও জীর্ণশীর্ণ অবস্থায় অফিস করত একজন ভাইস চেয়ারম্যান, একজন সচিব এবং কয়েকজন প্রশাসনিক স্টাফ। ছিল না কোনো গাড়ি। কোন মহলেরই এ ব্যাপারে ছিল না কোন মাথাব্যাথা।

ড. মুহম্মদ মাহবুবুর রহমান সেন্সর বোর্ডের চেয়ারম্যান হিসেবে আসেন। সে সময় সেন্সর বোর্ডের সদস্য ছিলেন চাষী নজরুল ইসলাম, আমজাদ হোসেন, নায়ক উজ্জ্বল, সাংবাদিক রুহুল আমীন গাজী, আব্দুস শহীদ, আনোয়ার আল দীন, আনোয়ার কবির বুলু, অধ্যাপিকা অনামিকা হক লিলি এবং তথ্য, স্বরাষ্ট্র ও আইন মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি। এফডিসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকও বোর্ডের সদস্য ছিলেন। এ ছাড়া ছিলেন প্রযোজক ও পরিচালক সমিতির সভাপতি।

সাধারন যে ব্যাপারটি ছিল। ছবি দেখার সময় অগ্রহণযোগ্য দৃশ্যগুলো কেটে দিয়ে আবার পেশ করার নির্দেশ দেয়া হত। পরিচালকরা তা মেনে নিতেন। কিন্তু হলে প্রদর্শনের সময় আবার সেই কাটপিস বা পৃথকভাবে নির্মিত কোনো কাটপিস জোড়া দিয়ে হলে প্রদর্শন করা হত।

মাহবুবুর রহমান বেশ শক্ত হাতে এসব অশ্লীলতা দমনে নামেন। কিন্তু কোনভাবেই প্রতিহত করা সম্ভব ছিল না স্থানীয় প্রশাসন ও ক্ষমতাশালী ব্যক্তিদের জন্য। সুস্থ ছবির নির্মাণ উৎসাহিত করার প্রচেষ্টায় চলচ্চিত্র জগতের অনেকেই ব্যক্তিগতভাবে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছিলেন। কিন্তু তারা তখন অসহায় হয়ে ঘুরতেন। নায়িকাদের মধ্যে দুই বোন সুচন্দা, ববিতা ও কবরী নতুন সেন্সর বোর্ডের সভাপতির বাসায় গিয়ে অশ্লীলতা রোধের জন্য বলতে গেলে পায়ে ধরেন। প্রয়াত নায়ক মান্নাও বাসায় গিয়ে সমর্থন ও সহযোগিতার কথা ব্যক্ত করেন।

অশ্লীলতায় যখন ইন্ডাস্ট্রি ডুবে যাচ্ছিল। টনক নড়ে পরিচালক সমিতি ও শিল্পী সমিতির। পরিচালক সমিতি দু’জন পরিচালকের সদস্যপদ বাতিল করে। তারা হলেন রাজু চৌধুরী এবং শাহাদত হোসেন লিটন। তাদের দু’ জনের ছবিতে ভয়াবহ অশ্লীল দৃশ্য থাকার অভিযোগে সদস্যপদ বাতিল করা হয়। তাদের ছবি ‘অবৈধ অস্ত্র’ এবং ‘নিষিদ্ধ আখড়া’। এছাড়াও চারজন পরিচালককে শো’কজ নোটিস দেয়া হয়। তারা হলেন এমএ রহিম, সাজেদুর রহমান সাজু, আহমেদ ইলিয়াস ভূঁইয়া এবং আনোয়ার চৌধুরী জীবন।

সে সময় নায়িকা মুনমুন ও ময়ূরীর পরিচিতি বেড়ে যায়। ম্যাডাম ফুলি-খ্যাত নায়ক আলেকজেন্ডার বো খানিকটা নাম পরিবর্তন করে লিডে চলে আসলেন। রুবেলের উপস্থিতিও ছিল দেখার মতো। রিয়াজ-ফেরদৌসের উপস্থিতি খানিকটা কমে গেল। অমিত হাসান প্রধান সারিতে ঢুকে গেলেন। নায়িকাদের মধ্যে আসলেন পলি, মনিকা। ডন, মেহেদি, সোহেল, আসিফ ইকবাল, আবরাজ খান, শিখা, ঝর্ণা, শাপলা, শায়লা ও নাম জানা-অজানা অনেকে ছিলেন সক্রিয়।

অশ্লীল যুগের সিনেমা বানাতেন মূলত এনায়েত করিম, মোহাম্মদ হোসেন-(ফায়ার), শরিফুদ্দিন খান দিপু, স্বপন চৌধুরী, মালেক আফসারী (মরণ কামড়, মৃত্যুর মুখে), মোস্তাফিজুর রহমান বাবু (স্পর্ধা), শাহাদাৎ হোসেন লিটন (কঠিন শাস্তি) এবং তার বড় ভাই বাদশা ভাই (লণ্ডভণ্ড, জোগি ঠাকুর), বদিউল আলম খোকন (দানব), রাজু চৌধুরী, এম এ আউয়াল, পল্লী মালেক (ঢাকার কুতুব), এম বি মানিক (জাদরেল), শাহিন-সুমন (নষ্ট), উত্তম আকাশসহ আরো অনেকে।

এদিকে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি অশ্লীল ছবির জন্য দায়ী ১১ জনকে চিহ্নিত করে। তাদের ওপর চাপ সৃষ্টি করা হলে এই মর্মে মুচলেকা দেন যে, ‘ভুল ত্রুটি যা হয়েছে তার জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করছি এবং আগামীতে কোনো ছবির অশ্লীল দৃশ্যে আর অভিনয় করব না। ভবিষ্যতে যদি এমন ঘটনা ঘটে তাহলে শিল্পী সমিতি এবং সংশ্লিষ্টরা যে সিদ্ধান্ত নেবেন তা মাথা পেতে নেব।’ মুচলেকা দেয়া শিল্পীদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন প্রিন্স, শায়লা, ড্যানিরাজ, জেসমিন, মমতাজ, নিরঞ্জন, লোপা, ডানা প্রমুখ। অশ্লীল ছবির প্রযোজক ও পরিচালক শরীফ উদ্দিন খান দিপুর বিরুদ্ধে মামলা করা হয়। এই দিপু তৎকালীন ক্ষমতাসীন সরকারের সংস্কৃতি অঙ্গনে তখন ব্যাপক প্রভাব বিস্তারকারী। তিনি ‘এনকাউন্টার’ নামে একটি সিনেমা নির্মাণ করেন। যা নিয়ে সেন্সর বোর্ডের সকলের সঙ্গে বিরোধে জড়িয়ে পড়েন। দিপু সদস্যদেরকে অকথ্য গালাগাল করেন, ভয়ভীতি দেখান। প্রায় সবাই আতঙ্কগ্রস্থ হয়ে পড়ে। বিশেষ করে নায়িকা ববিতা এবং শিল্পী খুরশীদ আজিম খান আতঙ্কগ্রস্থ হয়ে পড়েন।

দিপুকে কালো তালিকাভুক্ত করা হয়, তাকে এফডিসিতে প্রবেশ করতে দেয়া হবে না। তার ছবির সনদপত্র দেয়া হবে না এবং তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। দিপুর বিরুদ্ধে মামলা করায় দিপুকে আটক করার জন্য পুলিশ বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালায়। তাকে দৌড়ের ওপর রাখে পুলিশ।

সে সময় অশ্লীলতার বিরুদ্ধ র‌্যাবের মরহুম কর্নেল গুলজার একের পর এক হল এবং অশ্লীল ছবি সংশ্লিষ্ট অফিসগুলোতে অভিযান চালিয়ে উদ্ধার করেছিলেন কাটপিস নামক অশ্লীল সিনেমা ফুটেজ। তার অবদানও স্বীকার পেতে হবে।

বাংলা চলচ্চিত্রের ভয়ংকর অশ্লীলতার যুগ ২০০৬ সালে এসে কিছুটা দুর্বল হয়ে যায়। ফখরুদ্দীন আহমেদের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে এর প্রকোপ কিছুটা স্তিমিত হয়। র‌্যাব হানা দেয় কাকরাইলের অফিসগুলোতে। জব্দ করল হাজার হাজার কাটপিস, অগণিত নীল ছবি, অসংখ্য অশ্লীল পোস্টার।

২০০৭ এর শুরু দিকে এফডিসি এবং ইন্ডাস্ট্রির বিভিন্ন অঙ্গনে শুরু হল অশ্লীলতাবিরোধী আন্দোলন। আন্দোলনের পুরোধা ছিলেন নায়ক মান্না। সাথে যোগ দিলেন কিছু শুভাকাঙ্ক্ষী। আন্দোলনকে সমর্থন দিল গণমাধ্যম।

সে সময় ডিপজল শাকিবকে নিয়ে কিছু সিনেমা নির্মাণ করেন। সেসব ছবি ব্যবসাসফল হলে ইন্ডাস্ট্রি অশ্লীল যুগ থেকে একরকমের মুক্তি পায়।

অশ্লীলতার প্রবল দাপটে সবচেয়ে বড় যে ক্ষতির শিকার হয়েছিল চলচ্চিত্রাঙ্গন তা হচ্ছে মেধাবী পরিচালকদের নির্বাসনে চলে যাওয়া। যার জন্য আজও ধুকছে ইন্ডাষ্ট্রি। এজে মিন্টু সর্বশেষ পরিচালনা করেছিলেন ‘বাপের টাকা’ ছবিটি। সুনির্মিত হওয়ার পরও দেশের সর্বকালের অন্যতম সফল এই পরিচালকের ছবিটি অশ্লীলতার কারণে চলেনি। ১৯ বছর ধরে তিনি চলচ্চিত নির্মাণ ছেড়ে দিয়েছেন।

Check Also

সংবাদ পাঠিকাকে বিয়ে করতে যাচ্ছেন তাহসান

অভিনেতা, গায়ক তাহসান খান ও অভিনেত্রী মিথিলা ভালোবেসে সুখের সংসার সাজিয়েছিলেন। সেই সংসারের ইতি টানেন …

Leave a Reply

Your email address will not be published.