Home / মিডিয়া নিউজ / তারকাদের বাবা মায়েরা কে কোন পেশায় জড়িত?

তারকাদের বাবা মায়েরা কে কোন পেশায় জড়িত?

তারকাদের খবর তো আমরা সবাই জানি। তাদের বাবা- মায়ের খোঁজ আমরা কয়জন জানি?

বাবা-মা তারকা হলে সে খবর জানা হয়। শোবিজের বাইরের কেউ হলে অনেকটা অজানা থাকেন। সেই সব গর্বিত বাবা-মায়ের খোঁজ জানানো হল:

ববিতা: তাঁর বাবা নিজামুদ্দীন আতাউব একজন সরকারি কর্মকর্তা ছিলেন এবং মাতা বি. জে.

আরা ছিলেন একজন চিকিৎসক। ববিতার শৈশব ও কৈশোর কেটেছে যশোরে। ৩ ভাই ৩ বোনের মধ্যে বড় বোন সুচন্দা ও ছোটবোন চম্পা চলচ্চিত্র অভিনেত্রী। চলচ্চিত্র পরিচালক জহির রায়হান তাঁর ভগ্নিপতি। ববিতার মায়ের মতো ডাক্তার হবার স্বপ্ন ছিল, কিন্তু শেষ পর্যন্ত তিনি হয়ে যান বাংলা চলচ্চিত্রের ডাগর চোখের অসাধারন সুন্দর প্রতিভাবান অভিনেত্রী।

জাহিদ হাসান: সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার বহুলী ইউনিয়নের নিভৃত একটি গ্রাম চাঁদ পাল। ওই গ্রামেই জন্ম টেলিভিশন তারকা জাহিদ হাসানের। তবে তিনি এলাকায় পুলক নামেই বেশি পরিচিত। বর্তমানে সিরাজগঞ্জ পৌর শহরের বাহিরগোলা সড়কে তাঁর বসবাস।

বাবা মরহুম ইলিয়াছ উদ্দিন তালুকদার ছিলেন সরকারি চাকরিজীবী। মা রত্নগর্ভা হামিদা খাতুন। পাঁচ ভাই, তিন বোনের সবাই উচ্চশিক্ষিত এবং সরকারি চাকরিজীবী। চক্ষুবিশেষজ্ঞ এক ভাই ছাড়া সবাই দেশের বাইরে বসবাস করছেন।

শাকিব খান: গোপালগঞ্জ জেলার মুকসুদপুর উপজেলায় রাঘদি ইউনিয়নের রাঘদি গ্রামের মমিনুদ্দীন শেখের তিন ছেলে। তিনজনই ছিলেন সরকারি চাকরিজীবী। এই তিনজনের একজন আবদুর রফ শেখ।

আবদুর রফের একমাত্র ছেলে আজকের শাকিব খান। চলচ্চিত্রে নাম লেখানোর আগে শাকিব খানকে মাসুদ রানা শেখ বলেই সবাই জানত। শাকিবের মা গৃহিনী।

মোশাররফ করিম: বাবা করিম খলিফা ছিলেন একজন পল্লিচিকিৎসক ও মমতাজ বেগম ছিলেন গৃহিণী। মোশাররফ করিমের গ্রামের বাড়ি বরিশালের গৌরনদী।

সাইমন সাদিক : গ্রামের বাড়ি কিশোরগঞ্জ সদরের মহিনন্দ ইউনিয়নের কলাপাড়া গ্রামে। সাইমন কিশোরগঞ্জ সরকারি বালক উচ্চবিদ্যালয়ে পড়াশোনা করার পর বাকি পড়াশোনা করেছেন ঢাকায়। সাইমনের বাবা মো. সাদেকুর রহমান স্থানীয় রাজনীতির পাশাপাশি একজন সংস্কৃতিমনা ব্যক্তি। এলাকায় বিভিন্ন মঞ্চনাটকে তিনি বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন।

আরিফিন শুভ: গ্রামের বাড়ি ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার আংগারগারা গ্রামে। আংগারগারা গ্রামে পৈতৃক নিবাস হলেও তাঁর জন্ম ময়মনসিংহ শহরে। স্কুলে পড়াশোনা ও বেড়ে ওঠাও ময়মনসিংহ শহরেই। বাবা এস এম শামসুল হক ছিলেন সরকারি কর্মকর্তা।

প্রসূন আজাদ: বাবা আজাদ হোসেন এবং মা শাহানা আজাদ, দুজনই পেশায় পুলিশ কর্মকর্তা।

বিদ্যা সিনহা সাহা মিম: মা ছবি সাহা গৃহিনী। বর্তমানে তিনি মিমের সঙ্গেই থাকেন। বাবা অধ্যাপক বীরেন্দ্রনাথ সাহা। তিনি এখনো শিক্ষকতার সঙ্গে যুক্ত আছেন।

টয়া : বাবা এ বি এম বদরুদ্দৌজা চৌধুরী ব্যবসায়ী, মা স্কুলশিক্ষক। দুজন সফল। টয়ার নানা আইয়ুব আলী ও বাবা এ বি এম বদরুদ্দৌজা চৌধুরী সরাসরি মুক্তিযুদ্ধ করেছেন। তাঁর বাবা ক্লাস নাইনে পড়ার সময় দেশে যুদ্ধ শুরু হয়। বঙ্গবন্ধুর ভাষণ শুনে তিনি এপ্রিলের শেষ দিকে বাড়ি ছাড়েন। চলে যান ভারতের সোনাইমুড়ায়। সেখান থেকে মেলাঘরে। ট্রেনিং দিয়েছেন মেজর মতিন ও সেক্টর কমান্ডার খালেদ মোশাররফ। ট্রেনিং শেষে একজন গেরিলা যোদ্ধা হিসেবে বেশির ভাগ অপারেশনে অংশ নিয়েছেন তিনি।

শবনম ফারিয়া: অভিনেত্রী শবনব ফারিয়ার বাবা চিকিৎসক মীর আবদুল্লাহ। ২০১৭ সালের ১৬ জুলাই তিনি মারা যান। তিনি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধাও। শবনম ফারিয়ার মা গৃহিনী। তিনি সরকারী চাকরী করতেন। ফারিয়া জন্মের পর সংসারে সময় দেয়ার জন্য সে চাকরী ছেড়ে দেন।

নুসরাত ফারিয়া: বাবা মাজহারুল ইসলাম পেশায় ব্যবসায়ী, মা ফেরদৌসী পারভীন শিক্ষকতা করেছেন অনেকদিন। মায়ের বুটিক হাউজও রয়েছে।

উর্মিলা শ্রাবন্তী কর: বাবার নাম ব্রিগেডিয়ার (অব.) অনন্ত কুমার কর। তিনি আর্মি অফিসার ছিলেন। ২০১৬ সালের ২২ অক্টোবর তিনি মারা যান। তিনি একজন মুক্তিযোদ্ধাও। ১৯৭১ সালে উর্মিলার বাবা ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। ওই সময় টাঙ্গাইলের কাদেরিয়া বাহিনীর হয়ে যুদ্ধে অংশ নেন।

Check Also

সংবাদ পাঠিকাকে বিয়ে করতে যাচ্ছেন তাহসান

অভিনেতা, গায়ক তাহসান খান ও অভিনেত্রী মিথিলা ভালোবেসে সুখের সংসার সাজিয়েছিলেন। সেই সংসারের ইতি টানেন …

Leave a Reply

Your email address will not be published.